লুই পা

মূলকথাঃ চর্যার প্রথম পদ লুইপা-এঁর। তাই তাঁকে আদি সিদ্ধাচার্য মনে করা হয়। তিনি দুটি পদ, ১ম ও ২৯তম রচনা করেন।

Luipa
Luipa

সাধারণভাবে লুইপাদকেই আদি সিদ্ধাচার্য মনে করা হয়। তাঞ্জর বর্ণনা অনুযায়ী তিনি ছিলেন বাঙালি। তিনি মগধের বাসিন্দা ছিলেন ও রাঢ় ও ময়ূরভঞ্জে আজও তাঁর নাম শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করা হয়। তারানাথের মতে তিনি গঙ্গার ধারে বাস করতেন। চর্যার টীকায় তাঁর অন্য নাম লূয়ীপাদ বা লূয়ীচরণ। ১ ও ২৯ নং পদদুটি তাঁর রচিত। চর্যাপদের প্রথম পদ লুই পার রচনা। এই কারণে লুই পা কে আদিসিদ্ধ হিসেবে বর্ণনা করা হয়ে থাকে। কিন্তু রাহুল সাংকৃত্যায়ন সরহকে আদিসিদ্ধ হিসেবে উল্লেখ করেছেন। লুই পার শিক্ষক শবর পা সরহের শিষ্য ছিলেন বলে লুই পা সরহের পরে জন্মগ্রহণ করেছিলেন।

চর্যাপদের প্রথম পদটির দু’টি উল্লেখযোগ্য চরণ-

“কাআ তরুবর পাঞ্চ বি ডাল।
চঞ্চল চীএ পৈঠা কাল ।।”

আধুনিক বাংলায়ঃ
শরীরের গাছে পাঁচখানি ডাল–
চঞ্চল মনে ঢুকে পড়ে কাল।
অনুবাদক

Add a Comment